Sokaler Hasi
Lifestyle

কাঁঠালের কি কি উপকারিতা তা এখনি জেনে নিন

কাঁঠালের কি কি উপকারিতা তা এখনি জেনে নিন

মিষ্টি গন্ধ ও অতুলনীয় স্বাদে ভরপুর ফলের নাম হচ্ছে কাঠাঁল । যা অনেকেই খেতে অতটা পছন্দ করে না কিন্তু এতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন । যারা পছন্দ করে না তারা একটু কষ্ট করে খেলেই মিলবে অনেক পুষ্টি আর রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা ।

চলুন জেনে নিই – কাঁঠাল কার্বোহাইড্রেটের একটি অন্যতম উৎস। কাঁঠাল অপুষ্টিজনিত সমস্যা রাতকানা এবং রাতকানা থেকে অন্ধত্ব প্রতিরোধ করার জন্য খুবই উপযোগী ফল।  ১০০ গ্রাম কাঁঠালে পটাশিয়ামের পরিমাণ ৩০৩ মিলিগ্রাম। যার পটাশিয়াম উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। কাঁঠালের অন্যতম উপযোগিতা হল ভিটামিন সি। ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি দাঁতের মাড়িকে শক্তিশালী করে ।

কাঁঠালে আছে বিপুল পরিমাণে খনিজ উপাদান ম্যাঙ্গানিজ যা রক্তে শর্করা বা চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এর ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়ামের মতো হাড়ের গঠন ও হাড় শক্তিশালী করার ক্ষে্ত্রে ভূমিকা পালন করে। প্রতিদিন ২০০ গ্রাম পাকা কাঁঠাল খেলে গর্ভবতী মহিলা ও তার গর্ভধারণকৃত শিশুর সব ধরনের পুষ্টির অভাব দূর হয়। কাঁঠাল খেলে তার স্বাস্থ্য স্বাভাবিক থাকে এবং গর্ভস্থ সন্তানের বৃদ্ধি স্বাভাবিক হয়।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতেও সাহায্য করে এই মিষ্টি ফলটি।এমনকি ছয় মাস বয়সের পর থেকে মায়ের দুধের পাশাপাশি শিশুকে কাঁঠালের রস খাওয়ালে শিশুর ক্ষুধা নিবারণ হয়। অন্যদিকে তার প্রয়োজনীয় ভিটামিনের অভাব পূরণ হয়। আরোও কাঠাঁল দুশ্চিন্তা এবং নার্ভাসনেস কমাতে কাঁঠাল বেশ কার্যকরী।

বদহজমও রোধ করে কাঁঠাল। কাঁঠালে বিদ্যমান ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস- আলসার, ক্যান্সার, উচ্চ রক্তচাপ এবং বার্ধক্য প্রতিরোধে সক্ষম।কাঁঠালে আছে ভিটামিন বি৬ যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। কাঁঠালে বিদ্যমান ক্যালসিয়াম কেবল হাড়ের জন্য উপকারী নয় রক্ত সংকোচন প্রক্রিয়া সমাধানেও ভূমিকা রাখে। চাইলে আপনারা কাঠাঁলের জুস বানিয়েও খেতে পারেন এমনকি বাচ্চাদেরও খাওয়াতে পারেন । কারণ কাঠাঁল বাচ্চাদের শরিরের জন্য খুবই উপকারি ।

Related posts

পেয়ারার অনেক উপকারিতা জানেন কি ?

admin

পেঁয়াজের যত উপকারিতা

admin

বেগুনের যত উপকারিতা ।

admin

Leave a Comment